Apps

Picture

শরীয়তপুর নড়িয়া থানা পুলিশের কর্মতৎপরতায় দুর্ধর্ষ আন্তঃজেলা ডাকাত দলের সর্দার জীবন বেপারী সহ ১১ জন গ্রেফতার

Picture

শরীয়তপুর নড়িয়া থানা পুলিশের কর্মতৎপরতায় দুর্ধর্ষ আন্তঃজেলা ডাকাত দলের সর্দার জীবন বেপারী সহ ১১ জন গ্রেফতার

শরীয়তপুর নড়িয়া থানা এলাকায় গত ইং ০৬/০৬/২০১৯ তারিখ ১০/১২ জন অজ্ঞাত নামা ডাকাতরা নড়িয়া থানাধীন ঈশ্বরকাঠি ভাংগা কালভার্টের পাশে ডাইভারসন রাস্তার উপরে বিদেশ ফেরত যাত্রীর প্রাইভেটকার আটক করে তাদেরকে মারধর করে। ডাকাতরা তাদের কাছে থাকা ডলার, স্বর্ণালংকার, মোবাইল ফোন ডাকাতি করে নিয়া যায়। উল্লেখিত ডাকাতির ঘটনায় নড়িয়া থানার মামলা নং ০৬(০৬)২০১৯ রুজু হয়। ইং ১২/০৯/২০১৯ তারিখ নড়িয়া থানাধীন চাকধ-শিমুলতলা পাকা রাস্তার উপর ৮/১০ জন ডাকাত ট্রাক, অটোরিক্সা, মোটর সাইকেল, ওয়াজ ফেরত কয়েকজনকে আটক করতঃ দা দিয়া কুপিয়ে এবং মারধর করে মোবাইল টাকা পয়সা নিয়ে তাদেরকে রাস্তার পাশে হাত-পা বেধে ফেলে রেখে যায়। উল্লেখিত বিষয়ে নড়িয়া থানার মামলা নং ০৭(০৯)২০১৯ রুজু হয়।

নড়িয়া থানার অফিসার ইনচার্জ জনাব হাফিজুর রহমানের নেতৃত্বে থানার কয়েকজন চৌকস অফিসার এসআই/মোঃ ইমরান হোসেন, এসআই/রিপন নাগ, এসআই/শেখ আশরাফুল (ডিবি, শরীয়তপুর), এএসআই/আব্দুল কুদ্দুস, এএসআই/মোঃ নজরুল ইসলাম, এএসআই/মোঃ শামীম আলী, এএসআই/মোঃ শহিদুল হক, এএসআই/মোঃ সাগর হোসেন, কং/৮৪৩ হারুন অর রশিদ’দের নিয়া ডাকাতি প্রতিরোধ এবং ডাকাত গ্রেফতারের জন্য একটি টিম গঠন করা হয়। তাঁদের নিরলস প্রচেষ্টা অক্লান্ত পরিশ্রমের ফলে উপরে উল্লেখিত ডাকাতির ঘটনায় জড়িত আন্তঃজেলা সক্রিয় দুর্ধর্ষ ডাকাত দলের ডাকাত ১। সুমন শেখ, ২। মোঃ স্বপন, ৩। মোঃ আনোয়ার হোসেন আরিফ, ৪। মোঃ আলামিন সরদার ওরফে জুয়েল, ৫। মোঃ মোশারফ হোসেন, ৬। মোঃ রহমান সিকদার ওরফে মামুন, ৭। মোঃ মারুফ ওরফে শাওন, ৮। মোঃ আলাউদ্দিন বেপারীকে গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হয় এবং তাদের নিকট থেকে ডাকাতি মামলায় লুন্ঠিত ০৭ (সাত) টি বিভিন্ন কোম্পানীর মোবাইল ফোন, ১০ (দশ) টি বিভিন্ন কোম্পানীর সিম কার্ড, ০১ (এক) টি বিদেশী টর্চ লাইট, ডাকাতির কাজে ব্যবহৃত ০৩ (তিন) টি দা, ডাকাতির সময় ব্যবহৃত ০২ (দুই) টি কালো রংয়ের ছোট মুখোশ এবং ডাকাতি কাজে ব্যবহৃত পাটের সূতালী ও গামছা উদ্ধার করা হয়।

গ্রেফতারকৃত সকল আসামিকে বিজ্ঞ আদালতে দেওয়া তাদের জবানবন্দিতে ডাকাতির বিশদ বর্ণনা দেয়। বিজ্ঞ আদালতে তাদের স্বীকারোক্তিমূলক প্রদত্ত জবানবন্দিতে এবং অফিসার ইনচার্জের তদন্তে আন্তঃজেলা ডাকাত দলের দলনেতা দুর্ধর্ষ ডাকাত জীবন বেপারী, পিতা-মৃত আমীর হোসেন বেপারী, সাং-থিরোপাড়া, থানা-নড়িয়া, জেলা-শরীয়তপুর এর নাম উঠে আসে। আন্তঃজেলা ডাকাত দলের সর্দার জীবন বেপারী ঢাকার কেরানীগঞ্জ জিনজিরা এলাকায় আত্মগোপন থেকে দেশের বিভিন্ন স্থানে ডাকাতি করে এবং ৩/৪ মাস পর পর নড়িয়া এলাকায় এসে ভদ্র লোকের বেশ ধারন করে সকলকে ছালাম, আদাব দেয় ও নামাজ কালাম পড়ে এবং কোথায় কিভাবে ডাকাতি করা যায় সেই সব এলাকার রাস্তা ভালোভাবে রেকি করে সেই মোতাবেক পরিকল্পনা করে। পরিকল্পনার শেষে সে তার সহযোগী অন্যান্য ডাকাতদের ঢাকা থেকে এনে এলাকার বিভিন্ন জায়গায় আত্মগোপন করে থাকে। গভীর রাতে দুর্ধর্ষ আন্তঃজেলা ডাকাত দলের সর্দার জীবনের নেতৃত্বে ডাকাতরা দা, লাঠি, লোহার রড, মুখোশ, রশি নিয়া রাস্তার পাশে কোন নির্জন জায়গা, কলাক্ষেতে ও ঝোপঝাড়ে লুকিয়ে থাকে। সুযোগ মতো রাস্তায় গাড়ী বা নিরীহ মানুষকে পেলে আটক করে তাদেরকে মারধর করে এবং তাদের কাছে থাকা টাকা পয়সা, মোবাইল ফোন, স্বর্নলংকার সহ বিভিন্ন মূল্যবান জিসিনপত্র নিয়ে যায়। দুর্ধর্ষ ডাকাত জীবন ডাকাতি শেষে তার গ্রুপের ডাকাতদের বিভিন্ন পথে বিচ্ছিন্নভাবে ঢাকায় পাঠাইয়া দেয় এবং সে নিজেও ঢাকায় আত্মগোপন করে। উক্ত ডাকাতরা ঢাকা কেরানীগঞ্জ কামরাঙ্গীর চর, হাজারীবাগ এলাকায় ছদ্মবেশে আত্মগোপন করে থাকে।

নড়িয়া থানা পুলিশ কর্তৃক দুর্ধর্ষ আন্তঃজেলা ডাকাত দলের সর্দার জীবনকে গ্রেপ্তারের জন্য বিভিন্ন সময়ে ঢাকা, রাজশাহী, খুলনা, রংপুর, বরিশাল ও গাজীপুর সহ দেশের বিভিন্ন স্থানে অভিযান পরিচালনা করা হয়। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানা যায় যে, উক্ত দুর্ধর্ষ ডাকাত জীবন বেপারীর পূর্বের ডাকাত দলের সদস্যরা শরীয়তপুর জেলার নড়িয়া থানার মামলা নং ০৭(০৯)২০১৯ মুলে গ্রেফতার হয়ে শরীয়তপুর জেলা কারাগারে থাকায় সে নতুন ডাকাত দল সংগঠিত করে নড়িয়া উপজেলার যে কোন স্থানে ডাকাতি করার প্রস্তুতি গ্রহন করছে তারা। উক্ত সংবাদের ভিত্তিতে অবশেষে ইং ০৪/০২/২০২০ তারিখে সেই কাঙ্খিত সাফল্য আসে।

দুর্ধর্ষ আন্তঃজেলা ডাকাত দলের সর্দার জীবনকে নড়িয়া থানা পুলিশ কর্তৃক গ্রেফতার করা হয়। জীবন যেহেতু দুর্ধর্ষ আন্তঃজেলা ডাকাত দলের সর্দার, সেহেতু তার কৌশল ভিন্ন। তার কৌশলের কাছে সিনেমার গল্পও হার মানে। তাকে গ্রেফতারের সাথে সাথে সে জ্ঞান হারানোর ভান করে মুখ দিয়ে ফেনা বের করতে থাকে এবং এমন ভাব করে যে, সে মারা যাচ্ছে। গ্রেফতারকৃত আসামীকে চিকিৎসার জন্য তাৎক্ষনিক শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ডাক্তার দ্বারা চিকিৎসা দেয়ার পরও সে সুস্থ্য হয় না, অসুস্থ্যতার ভান ধরে থাকে। তার অবস্থার উন্নতি না হওয়ায় শরীয়তপুর সদর হাসপাতালের ডাক্তারের পরামর্শে ডাকাত সর্দার জীবনকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যাওয়া হয়। ঢাকা মেডিকেল কলেজের কর্তব্যরত ডাক্তারগণ বিভিন্ন পরীক্ষা নিরীক্ষা শেষে তার প্রেসার, হার্টবিট এবং শারিরীক অবস্থা স্বাভাবিক দেখিয়া জানান যে, আসামি পুলিশের নিকট থেকে বাঁচার জন্য অসুস্থ হওয়ার মিথ্যা অভিনয় করছে। ডাক্তারগণ তাকে সুস্থ্য বলে ঘোষনার পর কৌশল অবলম্বন করে তাকে এবং তার পরিবারকে বুঝানো হয় যে সে সুস্থ্য হলে তাঁকে ছেড়ে দেওয়া হবে। তার পরিবার ডাকাত জীবনকে ছেড়ে দেওয়ার ব্যাপারে পুলিশের সাথে কথা হয়েছে জানালে, পুলিশের বিভিন্ন কৌশলের কাছে অবশেষে দুর্ধর্ষ ডাকাত সরদার জীবন বেপারী হার মেনে দ্রুত সুস্থ্য হয়ে ওঠে। “কথায় বলে চোরের দশ দিন, পুলিশের এক দিন”।

 
Copyright © 2022 Superintendent of police, Shariatpur. Developed by Momtaj Trading(Pvt.) Ltd.